বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ২০২০ এবং স্টেট অব ওয়াল্ড পপুলেশন ২০২০ এর প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউনিএফপিএ) বাংলাদেশ আয়োজিত ওয়েবিনার

 

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ২০২০ পালন এবং স্টেট অব ওয়াল্ড পপুলেশন ২০২০ এর বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশে উপলক্ষে পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ডিপিএসডিইউ), এবং ইউএনএফপিএ বাংলাদেশ যৌথভাবে ১১ জুলাই, ২০২০ তারিখে ডিপিএসডিইউ-ইউএনএফপিএ বাংলাদেশ ওয়েবিনার আয়োজন করেছে। এ বছর বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে- “মহামারী কোভিড-১৯ কে প্রতিরোধ করি,নারী ও কিশোরীর সুস্বাস্থ্যের অধিকার নিশ্চিত করি”। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসজনিত মহামারীর চলমান সংকটে  স্বাস্থ্য সম্পর্কিত উদ্বেগের পাশাপাশি নারী ও কিশোরীরা সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে বঞ্চনার উচ্চ ঝুঁকিতে আছে। বিশ্বব্যাপী মানুষ, কমিউনিটি আর অর্থনীতিতে কোভিড-১৯ এর ব্যাপকতা যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত জটিলতা, আর্থিক নিরাপত্তাহীনতা, পরিবারের মধ্যে সহিংসতা, বিভিন্ন সামাজিক প্রতিবন্ধকতা যেমন বাল্য বিবাহ এবং গৃহস্থালি, সামাজিক এবং কমিউনিটি স্তরের নানারকম অধিকার লঙ্ঘন বাড়ানোর মাধ্যমে নারী ও কিশোরীদের জীবনকেও ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে । এই প্রেক্ষাপটে, বর্তমান প্রতিপাদ্যে নারী ও কিশোরীদের স্বাস্থ্য ও অধিকারের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার বিষয়ে বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে ।     

ওয়েবিনারের প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, মিসেস ফজিলাতুন নেছা ইন্দিরা, এমপি। ওয়েবিনারটির উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডঃ মোঃ আখতারুজ্জামান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, অধ্যাপক ডঃ সাদেকা হালিম মাননীয় ডিন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং ডঃ অসা টর্কেলসন, জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ) কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ, বাংলাদেশ।  মাননীয় সংসদ সদস্য, সিনিয়র পলিসি বিশেষজ্ঞগণ, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়- এর কর্মকর্তাগন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তাগন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগন, উন্নয়ন অংশীদার সংস্থার প্রতিনিধিগণ এবং এনজিও প্রতিনিধিসহ প্রায় ১০০ জন এই ওয়েবিনারটিতে অংশ নিয়েছেন।     

ওয়েবিনারের প্রধান অতিথি, মিসেস ফজিলাতুন নেছা ইন্দিরা, এমপি, করোনভাইরাসের এই সঙ্কটকালীন সময়ে নারী ও কিশোরীদের রক্ষা ও সুরক্ষার জন্য প্রধান অগ্রাধিকার হিসাবে মানবাধিকারকে ধরে রাখার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আলোকপাত করেন । এ প্রসঙ্গে তিনি কোভিড-১৯ চলাকালীন সময়ে নারী ও কিশোরীদের প্রতিরোধমূলক এবং সুরক্ষা সংক্রান্ত প্রয়োজনের যথাযথ মূল্যায়নের সাথে বিস্তৃত ও বহুমাত্রিক কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ণ ও বাস্তবায়নের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন ।  

অধ্যাপক ডঃ মোঃ আখতারুজ্জামান, মাননীয় উপাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, তাঁর বক্তব্যে কোভিড-১৯ দ্বারা সৃষ্ট বিভিন্ন বৃহত্তর ঝুঁকির বিষয় উল্লেখ করেছেন যেমনঃ প্রাক বিদ্যমান বৈষম্য আরও গভীরতর হওয়া, সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থার দুর্বলতা প্রকাশ  যেখানে আমাদের নারী ও কিশোরীরা পিতৃতান্ত্রিক সমাজে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে । তিনি এই পরিস্থিতি মোকাবেলায় এবং নারী ও কিশোরীদের স্বাস্থ্য ও অধিকার সম্পর্কিত প্রয়োজনীয়তা নিশ্চিত করার জন্য বিভিন্ন পর্যায়ের সম্মিলিত ও সর্বাত্মক প্রচেষ্টার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়েছেন। , অধ্যাপক ডঃ সাদেকা হালিম, মাননীয় ডিন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় - মহামারীর এই সময় লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত করা এবং সমঅধিকার ভিত্তিক কর্মপন্থা অনুসরণের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত চাহিদা, আর্থিক সহযোগীতা এবং অন্যান্য সামাজিক-সাংস্কৃতিক উদ্যোগ নিশ্চিত করার উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন ।  ডঃ অসা টর্কেলসন, ইউএনএফপিএর কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ, বাংলাদেশ এই ক্ষেত্রে করোনভাইরাস সংকটকালীন সময়ে বাংলাদেশে নারী ও কিশোরীদের স্বাস্থ্য ও অধিকার রক্ষায় এবং তিনটি শূন্য অর্জনের ক্ষেত্রে (শূন্য প্রতিরোধযোগ্য মাতৃমৃত্যু, শূন্য আনমেট নিড অফ ফ্যামিলি প্লানিং এবং শূন্য লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতা এবং এর ক্ষতিকারক অভ্যাস) ইউএনএফপিএ-র প্রতিশ্রুতি ও সহায়তার আশ্বাস ব্যক্ত করেছেন। 

উক্ত ওয়েবিনারে দুটি মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। “Defying the harmful practices that undermine equality in women and girls in pandemic and shadow pandemic in Bangladesh” শীর্ষক প্রথম প্রবন্ধটি উপস্থাপন করেন অধ্যাপক ডঃ মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম, পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় । উক্ত প্রবন্ধে তিনি বাল্যবিবাহ, লিঙ্গ ভিত্তিক নিপীড়ন, জন্ম পূর্ববর্তী লিঙ্গ নির্ধারণ, এবং নারী ও মেয়েদের উপর কোভিড ১৯ এর প্রভাব সম্পর্কে আলোচনা করেন। জনতাত্বিক সুফলের সাথে উক্ত বিষয়সমূহের সাথে সম্পর্ক প্রদর্শনের মাধ্যমে তিনি উক্ত যাত্রায় বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা সম্পর্কে আলোচনা করেন। নারীশিক্ষা নিশ্চিতকরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, সচেতনতামূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনা, মানসম্মত উপাত্ত সংগ্রহ, এবং বহুমূখী সহযোগীতার ব্যবস্থা করা সম্পর্কে তিনি তার প্রবন্ধে গুরুত্ব আরোপ করেন।   

“How to safeguard the health of women and girls during COVID-19” শীর্ষক দ্বিতীয় প্রবন্ধটি উপস্থাপন করেন অধ্যাপক ডঃ মোহাম্মদ বিললাল হোসেন, পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় । উক্ত উপস্থাপনায় তিনি বর্তমান কোভিড ১৯ সময়ে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকারের পরিস্থিতি, যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য সেবার নিম্নগামী ব্যবহার ও তার কারণ, এবং কোভিড সময়কালীন মেয়ে ও নারীদের  যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকারের সুরক্ষার লক্ষ্যে বিভিন্ন সম্ভাব্য কার্যক্রমের দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। এই প্রেক্ষিতে গবেষনা উপাত্তের মান উন্নতকরণ, জনস্বাস্থ্য যোগাযোগ,কোভিডকালীন সময়ে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করা থেকে স্বাস্থ্যকর্মীদের দূরে সরে যাওয়া-কে কমিয়ে নিয়ে আসা, টেলিমেডিসিন সেবার ব্যবহার বৃদ্ধি, বেসরকারী ও ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান সমূহের অংশগ্রহণ, এবং সার্বিক নিরীক্ষণ ও পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থাপনাকে শক্তিশালী করে তোলা-প্রভৃতির প্রাসঙ্গিকতা ও প্রয়োজনীয়তা তার উপস্থানপনায় উঠে আসে। 

উপস্থাপনাপরবর্তী আলোচনায় জ্যেষ্ঠ নীতি নির্ধারক ও বিশেষজ্ঞ-এর সাথে মাননীয় সংসদ সদস্য, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়- এর কর্মকর্তাগন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তাগন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগন, উন্নয়ন অংশীদার সংস্থার প্রতিনিধিগণ, এনজিও প্রতিনিধিগণ, সাংবাদিকরা এবং উপস্থিত অন্যান্য অতিথিবৃন্দ বর্তমান করোনভাইরাস সঙ্কটের সময়কালে  নারী ও কিশোরীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং নিরাপত্তার প্রয়োজনীয়তা এবং কৌশলগুলি সম্পর্কে তাদের মতামত প্রদান করেন। তারা বর্তমানে নারী ও কিশোরীদের স্বাস্থ্য ও অধিকার সম্পর্কিত চ্যালেঞ্জগুলি মূল্যায়নের প্রয়োজনীয়তার উপরও জোর দেন। আলোচিত বিষয়গুলি সম্পর্কে ওয়েবিনারে উপস্থিত শ্রোতাদের কাছ থেকে বিভিন্ন প্রশ্ন এবং মতামত এসেছে।  বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ২০২০ পালনের অংশ হিসাবে আয়োজিত রচনা প্রতিযোগিতার ৩ জন বিজয়ীর নাম ওয়েবিনারের শেষ পর্যায়ে ঘোষণা করা হয়। সবশেষে, পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডঃ মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম তার সমাপনী বক্তব্য প্রদান করে ওয়েবিনারের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। 

 

Latest News
  • অধ্যাপক ড. হাসনা বেগম-এর মৃত্যুতে ঢাবি উপাচার্যের শোক প্রকাশ

    03/12/2020

    Read more...
  • ঢাবি জাপানিজ স্টাডিজ বিভাগে ‘স্টুডেন্ট লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম এবং অ্যাপের’ উদ্বোধন

    03/12/2020

    Read more...
  • ঢাবি-এ বঙ্গবন্ধু’র জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপন উপলক্ষে আন্তর্জাতিক সিম্পোজিয়াম

    03/12/2020

    Read more...
  • International E-Conference on Emerging Population Issues

    03/12/2020

    Read more...
  • পরিসংখ্যান বিভাগের নতুন Website উদ্বোধন

    01/12/2020

    Read more...
  • অধ্যাপক ড. রতন লাল চক্রবর্ত্তী-এর মৃত্যুতে ঢাবি উপাচার্যের শোক প্রকাশ

    01/12/2020

    Read more...
  • ঢাবি উপাচার্যের বিজয় মাসের শুভেচ্ছা

    30/11/2020

    Read more...